২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার

বরিশালে বিএনপির এজেন্টদের গ্রেফতারে বাড়ি বাড়ি অভিযান

৬:৫৫ পূর্বাহ্ণ বুধবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৫
barisal

নতুন সংবাদ, বরিশাল : বরিশালের ১৭টি পৌরসভায় বিএনপির এজেন্টদের গ্রেফতারে পুলিশ বাড়ি বাড়ি অভিযান চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির নেতারা। তাদের দাবি, নির্বাচনী মাঠ থেকে বিএনপিকে হঠাতেই এই অভিযান।

গ্রেফতারের ভয়ে দলটির কোনো এজেন্ট সোম ও মঙ্গলবার নিজ বাড়িতে অবস্থান করেননি বলে তারা জানান। এছাড়া বরিশালের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলটির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার করা হয়েছে বলে তারা দাবি করেন। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বিএনপির নেতাকর্মী ও এজেন্টদের গ্রেফতারের অভিযোগ অস্বীকার করে বলা হয়, সুষ্ঠু নির্বাচন প্রশ্নে যাদেরকে প্রতিবন্ধক মনে হচ্ছে কেবল তাদেরই গ্রেফতার করা হচ্ছে।

বরিশালের মুলাদী পৌরসভার বিএনপির মেয়র প্রার্থী আসাদ মাহমুদ বলেন, ‘এজেন্টদের তালিকা প্রকাশের পর পরই সোমবার রাতভর ৭, ৮, ৯, ২ এবং ৩নং ওয়ার্ডে পুলিশের সঙ্গে মিলে বাড়ি বাড়ি হানা দেয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা। এজেন্টদের বাড়ির খাটের নিচ পর্যন্ত তল্লাশি করে তারা। ভোটের দিন কেন্দ্রে গেলে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়। উপজেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রিন্টু মিঞাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।’

তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, বিভিন্ন অভিযোগে এবং মামলার আসামিদেরই শুধু গ্রেফতার করা হয়েছে। মুলাদী থানা পুলিশের ওসি মতিউর রহমান মঙ্গলবার জানান, এজেন্টদের বাড়ি বাড়ি পুলিশি অভিযান চালানো হয়নি।

এজেন্ট ও নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি পুলিশি অভিযানের অভিযোগ করেন গৌরনদী পৌরসভার বিএনপি প্রার্থীর প্রধান নির্বাচন সমন্বয়কারী ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সোবাহান। তিনি বলেন, সোমবার রাতে পৌর বিএনপির সভাপতি মনিরুজ্জামান মনিরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বহিরাগত আর অপরিচিত মুখে ভরে গেছে গৌরনদী। একই অভিযোগ করেন স্বরূপকাঠি উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ফখরুল আলম ও মেহেন্দীগঞ্জের বিএনপির মেয়র প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন দ্বীপেন।

বিএনপির এজেন্টদের গ্রেফতারের অভিযোগের বিষয়ে বরিশালের পুলিশ সুপার আকতারুজ্জামান মঙ্গলবার বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন প্রশ্নে যাদেরকে প্রতিবন্ধক মনে হচ্ছে কেবল তাদের বিরুদ্ধেই আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ। কোনো রাজনৈতিক বিবেচনা কিংবা প্ররোচনায় কোনো অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে না।

এজেন্টদের ভোট কেন্দ্রে যেতে না করা হয়েছে এবং ভোটারদেরও মামলায় জড়ানোর হুমকি দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করে বানারীপাড়ার বিএনপি প্রার্থী মাহবুবুর রহমান মাস্টার বলেন, সকাল ৯টার মধ্যে ভোট শেষ করার ঘোষণা দিয়েছে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। রিটার্নিং অফিসারকে জানানোর পরও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বাকেরগঞ্জে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মতিউর রহমান।

উজিরপুরের বিএনপি প্রার্থী শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে নিষেধ করছে আওয়ামী লীগের লোকজন। কেন্দ্রে যেতে নিরাপত্তার অভাব বোধ করছে আমাদের এজেন্টরা।’ ভোলা সদরের বিএনপি প্রার্থী হারুন অর রশিদ ট্রুম্যান বলেন, ৪০ থেকে ৫০ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বিএনপির এজেন্টসহ নেতাকর্মীদের এলাকা ত্যাগের নির্দেশ দিয়েছে ক্ষমতাসীন দলের লোকজন।

বিএনপি দৌলতখানের প্রার্থী আনোয়ার হোসেন এবং বোরহানউদ্দিনের প্রার্থী মনিরুজ্জামান মনির বলেন, দফায় দফায় হামলা-ভাংচুর হচ্ছে আমাদের নেতাকর্মীদের বাড়িঘর। সেই সঙ্গে চলছে পুলিশি অভিযান। এজেন্ট এবং বিএনপি সমর্থক ভোটারদের নিষেধ করা হচ্ছে কেন্দ্রে যেতে। নলছিটিতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান বলেন, ‘সকাল ১০টার মধ্যে সব ভোট বাক্সে ভরা হবে বলে শুনেছি। আমাদের এজেন্ট আর নেতাকর্মীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে। পুলিশ কিংবা প্রশাসন কেউই আমাদের কোনো কথা শুনছে না।

স্থানীয় আবাসিক হোটেলগুলোতে বহিরাগত লোকজনে ভরে গেছে- এমন অভিযোগ করেছেন বিএনপির কলাপাড়ার মেয়র প্রার্থী হুমায়ুন কবির, কুয়াকাটার মেয়র প্রার্থী আজিজ মুসল্লি, বরগুনা সদরের মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম, বেতাগীর মেয়র প্রার্থী হুমায়ুন কবির মল্লিক এবং পাথরঘাটার মেয়র প্রার্থী মল্লিক মো. আইউব।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, গত উপজেলা ও পৌর নির্বাচন যে ছকে করেছে আওয়ামী লীগ এবারও ঠিক একই ছকে এগোচ্ছে। শেষ দু’দিনের হামলা-ভাংচুর আর পুলিশি অভিযানের মাধ্যমে মনোবল ভাঙ্গার চেষ্টা চলছে আমাদের। তবে আমরাও এবার কঠিনভাবে ভোট কেন্দ্র পাহারা দেব। প্রতিটি কেন্দ্রে জনগণের ভোটের অধিকার রক্ষায় থাকবে আমাদের নেতাকর্মীরা।’

তবে বিএনপির এসব অভিযোগ অবশ্য উড়িয়ে দিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ বলেন, ‘ভোট চুরি আর ডাকাতির ইতিহাস কেবল বিএনপিরই দখলে, আমাদের নয়। রাজনৈতিক ভুলের কারণে তারা আজ গণবিচ্ছিন্ন। নির্বাচনে ভরাডুবি হবে বুঝেই উল্টাপাল্টা বলছে তারা।’ বরিশালে হামলা, ভাংচুর কিংবা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগ কোনো বিএনপি প্রার্থী নির্বাচন কমিশনে করেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বরং বলতে পারি যে, বিভিন্ন ভাবে নির্বাচন কমিশন আমাদের সঙ্গে বিমাতাসুলভ আচরণ করছে। ভোটে জিততে পারবে না বলেই ভোটের পর যাতে কারচুপির মিথ্যা অভিযোগ তোলা যায় সেজন্যে এখন থেকেই মাঠ তৈরি করছেন বিএনপি নেতারা।’

Leave a Reply

Be the First to Comment!

Notify of

wpDiscuz


সম্পাদক: ডি.এম. আমিরুল ইসলাম অমর

প্রকাশকঃ কাজী আমান উল্যাহ মাহফুজ, নির্বাহী সম্পাদকঃ অর্ক হাসান

৮১/২, উত্তর যাত্রাবাড়ী, ঢাকা- ১২০৪ । মোবাইলঃ ০১৮১৫-৫৭৬৬৪০, ০১৯৪৯-২৮১৫৭৮

ইমেইলঃ natunsangbad@yahoo.com

ওয়েবঃ www.natunsangbad.com